শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০২:৪৫ অপরাহ্ন

এসএসসির কঠিন যুদ্ধে ১ লাখ ২১ হাজার শিক্ষার্থী

আগামী ১৪ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে এ বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা (এসএসসি)। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় এবারই প্রথমবারের মতো তিনটি নৈর্বচনিক বিষয়ে পরীক্ষা দেবেন। সিলেট শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এসএসসির এই কঠিন পরীক্ষাযুদ্ধে বসবে ১ লাখ ২১ হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থী। যা গেল বছরের চেয়ে সামান্য বেশি। এবার পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও বেড়েছে।

সিলেট শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, সর্বশেষ এসএসসি পরীক্ষায় এ বোর্ডে পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১৬ হাজার ৩৭০ জন। এ বছর পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ হাজার ৭৬১ জন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ২১ হাজার ১৩১ জন।

 

পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ৫৩ হাজার ৯৪০ জন ছাত্র এবং ৬৭ হাজার ১৯১ জন ছাত্রী। গেলবার ছাত্রসংখ্যা ৪৯ হাজার ৯৫৩ জন ও ছাত্রীসংখ্যা ৬৬ হাজার ৪১৭ জন ছিল।

এ বছর  মানবিক বিভাগের পরীক্ষার্থীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এ বিভাগ থেকে ৮৯ হাজার ৯৪৪ জন পরীক্ষায় বসবেন। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ২১ হাজার ৬২৯ জন এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে ৯ হাজার ৫৫৮ জন পরীক্ষার্থী রয়েছেন।

গেলবারের চেয়ে এবার মানবিক বিভাগে ৫ হাজার ৪২১ জন ও বিজ্ঞান বিভাগে ১ জন পরীক্ষার্থী বেড়েছে। তবে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগে ৬৫৯ জন পরীক্ষার্থী কমেছে।

 

গতবছর ৯১২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার্থীরা এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন। এবার আরও ৭টি প্রতিষ্ঠান বেড়ে ৯১৯টি হয়েছে।

বোর্ড সূত্র জানায়, এ বছর সিলেট জেলায় ৩৫৩টি প্রতিষ্ঠান থেকে পরীক্ষার্থী রয়েছেন ৪৩ হাজার ৫১৭ জন। তন্মধ্যে মধ্যে ১৯ হাজার ৭২৫ জন ছাত্র ও ২৩ হাজার ৭৯২ জন ছাত্রী। গেল বছরের মতো এ বছরও পরীক্ষাকেন্দ্র ১৪৬টিই রয়েছে।

সুনামগঞ্জ থেকে ২১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ২৬ হাজার ৪৫৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেবেন। তাদের মধ্যে ছাত্রসংখ্যা ১২ হাজার ৩১৫ জন, ছাত্রীসংখ্যা ১৪ হাজার ১৪৪ জন।

 

মৌলভীবাজার জেলার ১৮৫টি প্রতিষ্ঠান থেকে এবার পরীক্ষার্থীসংখ্যা ২৬ হাজার ৭৪১ জন। তন্মধ্যে ১১ হাজার ১৩৫ জন ছাত্র ও ১৫ হাজার ৬০৬ জন ছাত্রী।

এবং হবিগঞ্জ জেলায় ১৬৫টি প্রতিষ্ঠানের ২৪ হাজার ৪১৪ জন পরীক্ষার্থী রয়েছেন। তাদের মধ্যে ছাত্র ১০ হাজার ৭৬৫ জন, ছাত্রী ১৩ হাজার ৬৪৯ জন।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের উপ-সচিব খালেদা আক্তার সাক্ষরিত এসএসসি পরীক্ষার সময়সূচিতে বলা হয়েছে, এ বছর পরীক্ষা গ্রহণের সময় হবে দেড় ঘন্টা। প্রতি বিষয়ে পূর্ণমান ৫০। রচনামূলক অংশে নম্বর থাকবে ৩৫ ও এমসিকিউ (মাল্টিপল চয়েজ কোয়েশ্চেন) থাকবে ১৫ নম্বরের। তবে ৫০ নম্বরকে ১০০তে রূপান্তর করে পরীক্ষার ফল দেওয়া হবে। রচনামূলক ও এমসিকিউ পরীক্ষার মধ্যখানে কোনো বিরতি থাকবে না।

 

১৪ নভেম্বর প্রথমদিন শুধু সকালে একটি শিফটে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার অন্য দিনগুলোতে সকাল ১০টায় ও বেলা ২টায় দুই শিফটে পরীক্ষা নেওয়া হবে। পরীক্ষা হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে।

পরীক্ষা গ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে বলে সিলেটভিউকে জানিয়েছেন সিলেট শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর অরুন চন্দ্র পাল।

তিনি সিলেটভিউকে বলেন, ‘১৪ নভেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরু হবে। ২৩ নভেম্বর শেষ হবে। এবার তিনটি নৈর্বচনিক বিষয়ে পরীক্ষাগ্রহণ করা হবে। সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরীক্ষা গ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।’

 

তিনি আরও বলেন, ‘পরীক্ষা চলাকালে বোর্ডের নিজস্ব টিম মাঠে থাকবে। এছাড়া জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের টিমও কাজ করবে।’

সিলেটভিউ২৪ডটকম/আরআই-কে

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 ekattorerawaz24
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Jp Host BD